1. admin@gangchiltv.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ০৮ জুন ২০২৩, ০৯:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জ যুবলীগের শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত নড়াইলে হাতুড়ি পেটার শিকার কলেজ ছাত্র। পটুয়াখালী দুমকি উপজেলায় আত্মহত্যার প্ররোচনা কারি কলেজের প্রভাষক মোঃ জাকির মাস্টারের বিরুদ্ধে মানববন্ধন। চুরি মামলার ০৫টি গরু উদ্ধারসহ মূল ০১জন আসামি গ্রেফতার এস.এস.সি. ব্যবহারিক পরীক্ষার নামে কিসের ফিস নেওয়া হয়!!! বিএনপি ৫ বছরে ঠাকুরগাঁওয়ের কোন উন্নয়ন করতে পারেনি – রমেশ চন্দ্র সেন নড়াইলে নেতা-কর্মীর ভালোবাসায় সিক্ত অস্ট্রেলিয়ার আওয়ামী নেতা রোমেল। প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে ভান্ডারিয়ায় আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ বাংলাদেশ আ,লীগ অস্ট্রেলিয়া শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক’র লোহাগড়ায় আগমন ও গণসংযোগ।  কেশবপুর উপজেলা ভূমি অফিসের উদ্যোগে ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

বাগেরহাটের রামপালে পাওনা চেয়ে বিপাকে এক যুবক, চুরির অপবাদ দিয়ে ২২ ঘন্টা আটকে রেখে বর্বর নির্যাতন, আটক ১

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ, ২০২৩
  • ৩৬ ৯৬বার পঠিত

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাগেরহাটের রামপালে পাওনা চেয়ে বিপাকে এক যুবক, চুরির অপবাদ দিয়ে ২২ ঘন্টা আটকে রেখে বর্বর নির্যাতন, আটক ১বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ বাগেরহাটের রামপালে শেখ আব্দুল্লাহ (২৫) নামের এক যুবককে প্রায় ২২ ঘন্টা আটকে রেখে বর্বর নির্যাতন করা হয়েছে। পাওনা টাকা চেয়ে বিপাকে পড়েছে আব্দুল্লাহ। ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক চুরির অপবাদ দিয়ে করা হয়ছে বর্বর নির্যাতন।এমনকি ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক চুরির অপবাদ দিয়ে স্থানীয় বাইনতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল্লাহ সামনে ওই যুবকের চোখ তুলে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে নির্যাতনের বিষয়টি কাউকে না জানানোর শর্তে ছেড়ে দেওয়া হয়। ঘটনাটি রামপাল উপজেলার ব্রী-চাকশ্রি এলাকার।
২৩ মার্চ দুপুরে ইজিবাইকযোগে বাগেরহাট আসার পথে রামপাল উপজেলার চাকশ্রি নামক স্থান থেকে জোরপূর্বক শেখ আব্দুল্লাহকে তুলে নিয়ে যায় ব্রি চাকশ্রী এলাকার শেখ হাসান আলী ও ইউপি চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল্লাহর ভাগ্নে আবু সালেহসহ আর ৫/৬জন। চুরির অপবাদ দিয়ে প্রায় ২২ ঘন্টা আটকে রেখে করা হয় নির্যাতন। পরে শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এদিকে ঘটনার চারদিন পার হলেও থানায় কোন মামলা হয়নি। তবে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় নড়ে চড়ে বসেছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার কে এম আরিফুল হক। এই ঘটনায় বুধবার হাসান নামের একজনকে আটক করেছে রামপাল থানা পুলিশ। থানায় মামলা হয়েছে। আটক আসামীকে বাগেরহাট আদালতে প্রেরন করা হয়েছে বলে ওসি সামছুউদ্দিন জানান।
নির্যাতনের শিকার আব্দুল্লাহ বাগেরহাট সদর উপজেলার মুনিগঞ্জ এলাকার শেখ গফুরের ছেলে। বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আব্দুল্লাহ বলেন, পূর্ব পরিচিত হওয়ায় ব্রি চাকশ্রী এলাকার শেখ হাসান আলীকে আমি ১ লক্ষ ২৭ হাজার টাকা ধার দেই। কিন্তু সে আমাকে টাকা না দিয়ে বিভিন্ন ভাবে সময় ক্ষেপন করতে থাকে। পরবর্তীতে টাকা বাবদ হাসান আলী তার মালিকানাধীন ইজিবাইকটি আমার কাছে বিক্রি করে দেয়। প্রতিদিন দুইশ’ টাকা ভাড়ায় সে ইজিবাইকটি চালাতে থাকে। কিন্তু কয়েক দিন টাকা দেওয়ার পরে আর টাকা দেয় না। যার কারণে জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে আমি ইজিবাইক নিয়ে বিক্রি করে দেই। পরবর্তীতে এই বিষয় নিয়ে আর কথা হয়নি। কিন্তু হঠাৎ করে বৃহস্পতিবার দুপুরে ইজিবাইকযোগে রামপাল থেকে বাগেরহাট আসার পথে চাকশ্রী নামক স্থান থেকে হাসান আলী ও চেয়ারম্যানের ভাগ্নে আবু সালেহসহ কয়েকজন জোরপূর্বক আমাকে ধরে নিয়ে যায়। ব্রি চাকশ্রী এলাকায় শেখ হাসান আলী বাড়িতে নিয়ে আমাকে নির্যাতন করে। সন্ধ্যার দিকে আমার বন্ধু প্রাইভেট কার চালক আল আমিনকে চাকশ্রী আসার জন্য আমাকে দিয়ে ফোন করায়। পরে আল আমিন গেলে তাকেও বেধে রাখে হাসান ও আবু সালেহ‘রা। সারারাত আমাকে অমানবিক নির্যাতন করে আবুল সালেহ ও হাসানসহ কয়েকজন। বেধড়ক মারপিটের সাথে শরীরে সিগারেটের সেকা ও আঙ্গুলের মধ্যে খেজুরের কাঁটা ঢুকিয়েছে। চোখ উঠিয়ে ফেলার কথা বলেছে।
আব্দুল্লাহ আরও বলেন, সারারাত এভাবে অত্যাচারের পর দুপুরে বাইনতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল্লাহর কাছে নিয়ে যায় আমাকে ও বন্ধু আল আমিনকে। তিনি কোন কথা না শুনে আমাদের চোখ তুলে ফেলতে বলেন। পরে ফাঁকা স্ট্যাম্পে আমার এবং আমার মায়ের স্বাক্ষর রেখে এবং ৩ লক্ষ টাকার দেওয়ার স্বীকারোক্তি রেখে ছেড়ে দেয়। তিনি হামলাকারীদের কঠিন বিচার চাই।
শেখ আব্দুল্লাহর মা খালেদা বেগম বলেন, ওরা ছেলেকে যেভাবে নির্যাতন করেছে তা মানুষে করে না। চেয়ারম্যানের কাছে যেয়েও কোন প্রতিকার পাইনি। তিনি ছেলেকে নির্যাতনের বিচার চান।
প্রত্যক্ষদর্শী শেখ আব্দুল্লাহর বন্ধু প্রাইভেটকার চালক আল আমিন বলেন, আব্দুল্লাহর ফোন পেয়ে চাকশ্রী বাজারে গেলে হাসান ও আবু সালেহ তাকে বেধে রাখে। সারারাত আব্দুল্লাহকে নির্যাতন করে শুক্রবার দুপুরে ছেড়ে দেয়। তবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল্লাহ বলেছেন, তার সামনে কোন নির্যাতন হয়নি। আবু সালেহ তার ভাগ্নে নয়।
বাগেরহাট জেলা হাসপাতালের তত্তাবধায়ক ডাঃ অসীম কুমার সমাদ্ধার বলেন, আব্দুল্লাহ’র শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফুলা-জখম রয়েছে। মারাত্মক ইনজুরি রয়েছে কিনা সে বিষয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর জানা যাবে। পুলিশ সুপার কে এম আরিফুল হক বলেন, ভিডিওটি আমরা দেখেছি। বিষয়টি তদন্ত চলছে। অপরাধীদের শনাক্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।
ভাইরাল হওয়া ২ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের ভিডিওতে দেখা যায় একটি ঘরের পিছনে আম গাছের সাথে বেধে এক যুবককে মারধর করছে কয়েকজন যুবক। পরে মাটিতে শুইয়ে এক পা পাড়িয়ে ধরে আরেক পা উপরে উঠিয়ে গালিগালাজ করা হচ্ছে। এক পর্যায়ে দুই পায়ের তলায় মোটা লাঠি দিয়ে পেটাতে দেখা যায় আবু সালেকে। ওই যুবক মাগো মাগো বলে চিৎকার করছিল। #

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

আজকের দিন-তারিখ

  • বৃহস্পতিবার (রাত ৯:১৫)
  • ৮ই জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৯শে জিলকদ, ১৪৪৪ হিজরি
  • ২৫শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © গাঙচিল টিভি ©
Theme Customized By Shakil IT Park