1. admin@gangchiltv.com : admin :
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পুলিশ পরিচয়ে বিয়ে, শ্যালককে চাকরি দেওয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাৎ বাগআঁচড়া ৮দলীয় নক আউট মিনি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগ-বিএনপির শাসনকালে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়নি: চুন্নু শার্শায় জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত শার্শায় আওয়ামীলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে হামলায় আহত ১২ বিরামপুরে আলুর বাম্পার ফলন দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকের মুখে খুশির ঝিলিক বিরামপুরে আলুর বাম্পার ফলন দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকের মুখে খুশির ঝিলিক নড়াইলে ব্রাজিলের খেলা দেখতে এসে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে স্বাগতম বৈরাগী নামে এক যুবক খুন ওসি সুমন কুমার মহন্তর বিশেষ অভিযানে আটক ১০ ঠাকুরগাঁও পাক হানাদারমুক্ত দিবস আজ

ফুলকপি চাষ করে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২২
  • ৪২ ৯৬বার পঠিত

 

এস এম মাসুদ রানা রংপুর বিভাগীয়) প্রতিনিধি-

অল্প খরচে লাভ বেশি হওয়ায় ফুলকপি চাষ করে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে। দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলায় ফুলকপির বাম্পার ফলনে খুশি কৃষকরা। এই অঞ্চলের কৃষকরা ফুলকপির পাশাপাশি অন্যান্য সবজির আবাদও করে থাকেন।

 

আশা করছেন এবছর আরো বেশি লাভবান হতে পারবেন। অনুকূল আবহাওয়া ও সময়মতো বীজ বপনের পাশাপাশি সুষম সার ব্যবহারের কারণে পীরগঞ্জের কয়েকটি ইউনিয়নে এবার ফুলকপির ফলন ভালো হয়েছে। এতে লাভের আশায় মুখিয়ে আছেন তারা। ফুলকপির চাহিদা থাকায় বাজারদরও ভালো পাচ্ছেন কৃষকরা। এলাকার উৎপাদিত ফুলকপি চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়।

 

কৃষক ইব্রাহিম বলেন, আমি প্রতি বছর ফুলকপির আবাদ করি। আল্লাহর রহমতে ফুলকপির ভালো আবাদ হয়েছে। গত বছরের তুলনায় এবছর ফলন বেশি হয়েছে। বাজারদর ভালো থাকলে লাভবান হতে পারবো। এবছর খরচের পরিমানও বেশি হয়েছে। মুকুন্দপুর ইউনিয়নের ভেলার পাড়া গ্রামের আরেক কৃষক হাসান আলী বলেন, ফুলকপি শুধু শীতকালেই নয়, এখন সারাবছর চাষ করা যায়। তবে শীতে ও তার আগ মুহুর্তে ফুলকপির বাজারদর ভালো থাকে।

তিনি আরও বলেন, আমি এবছর ১২ হাজার টাকা খরচ করে ২৫ শতাংশ জমিতে হাইব্রিড ফুলকপির চাষ করেছি। ফলন ভালো হয়েছে। আশা করছি আগাম ফুলকপি বিক্রি করে আবার শীতকালীন ফুলকপির চাষ করতে পারবো। বাজারদর ভালো থাকলে লাভবান হবো। পৌরসভার রুস্তমপুর গ্রামের কৃষক খাদেমুল বলেন, বর্তমানে এক একর জমিতে ফুলকপি চাষে খরচ হবে প্রায় ১ লাখ টাকা। তবে ফলন ও বাজারদর ভালো থাকলে লাভ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মামুদপুর মুন্সিপাড়া গ্রামের সবজি চাষি সমিরুদ্দিন বলেন, এবার আগাম জাতের ফুলকপির আবাদ করেছি। সার ও সেচে খরচ বেশি পড়েছে। বিশেষ করে কীটনাশকের দাম বেশি হওয়ায় ধকল গেছে। তবে এই সবজির ফলন ভালো হওয়াতে কোনো আপসোস নেই। বাজার ভালো হওয়ায় সারের খরচ কিছুটা পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে। এখন ফুলকপি বাজারজাত করতে ব্যস্ত সময় পার করছি।

 

কৃষকরা আরও জানান, স্থানীয় হাটবাজার ছাড়াও পার্শ্ববর্তী বগুড়া এবং জয়পুরহাটের বিভিন্ন হাটে ফুলকপির পাইকারদের কাছে তারা এই সবজি বিক্রি করেন। অনেকে আবার জমি থেকেই ফুলকপি নিয়ে যান। চাষাবাদে কষ্ট ও চাষে খরচ বেশি লাগলেও ভালো ফলন আর আশানুরূপ বাজারদর পাওয়ায় তারা খুশি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ নিক্সন চন্দ্র পাল বলেন, এ অঞ্চলের কৃষকরা প্রতিবছরই ফুলকপিসহ অন্যান্য শীতকালীন সবজির চাষ করে থাকেন। চাষিরা অত্যন্ত শ্রমজীবী। ফসল উৎপাদনে তাদের মধ্যে অলসতা নেই। উপজেলা কৃষি বিভাগের লোকজন চাষিদের পাশে থেকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। তারা সবজির ভালো ফলন পাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

আজকের দিন-তারিখ

  • রবিবার (ভোর ৫:৩১)
  • ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • ১০ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
  • ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ © গাঙচিল টিভি ©
Theme Customized By Theme Park BD